কম্পিউটারের কিছু সমস্যা ও সমাধান

কম্পিউটারের কিছু সমস্যা ও সমাধান

 

সমস্যা : ০১

আমি উইন্ডোজ xp সার্ভিস প্যাক টু ব্যবহার করি। কিন্তু কিছুদিন ধরে কম্পিউটারের সাউন্ড সিস্টেমে সমস্যা দেখা দিচ্ছে। এমপিথ্রি চালানোর সময় ‘There may not be a sound device installed on your computer’ বার্তা প্রদর্শন করে।

সমাধান : ০১

আপনার সাউন্ড সিস্টেমটি বিল্টইন না এক্সটারনাল, জানালে ভালো হতো। যদি বিল্টইন সাউন্ড সিস্টেম হয়, তাহলে আপনাকে নতুন করে সাউন্ড ড্রাইভারটি ইনস্টল করতে হবে। এঙ্টারনাল হলে সাউন্ড সিস্টেমটি খুলে পরিষ্কার করার পর আবার সঠিকভাবে সংযোগ দিতে হবে।

সমস্যা : ০২

আমি অফিস ২০০৩ সংস্করণ ব্যবহার করি। আমার ওয়ার্ড প্রোগ্রামে ঋড়ৎসধঃ মেন্যুটি নেই। এটি কি ভাইরাসের কারণে হচ্ছে, নাকি অন্য কোনো সমস্যা?

সমাধান : ০২

আপনার ব্যবহৃত অফিস ২০০৩ সংস্করণটিতে সম্ভবত সমস্যা রয়েছে। তাই সফটওয়্যারটি আন-ইনস্টল করে নতুন করে ভালো মানের অফিস ২০০৩ ইনস্টল করুন।

সমস্যা : ০৩

আমি অনেক পুরনো মডেলের কম্পিউটার ব্যবহার করি। আমার কম্পিউটার চালু করার ১০ থেকে ১৫ মিনিট পর কম্পিউটার বন্ধ হয়ে যায়। কয়েক ঘণ্টা পর আবার চেষ্টা করলে কম্পিউটার চালু হলেও একই সমস্যা হয়।

সমাধান : ০৩

আপনার কম্পিউটারের পাওয়ার সাপ্লাইতে সম্ভবত সমস্যা রয়েছে। এ জন্য পাওয়ার সাপ্লাই পরিবর্তন করার পাশাপাশি প্রসেসর, র্যা ম ও মাদারবোর্ড পরিবর্তন করে আপনার কম্পিউটারটি হালনাগাদ করে নিন। তা না হলে এ ধরনের সমস্যা নিয়মিত হবে।

সমস্যা : ০৪

আমার কম্পিউটারের মাদারবোর্ডের সিডি হারিয়ে গেছে। তাই উইন্ডোজ সেটআপ করার সময় কয়েকটি ড্রাইভার ফাইল মিসিং দেখায় এবং অডিও-ভিডিও ফাইল চলে না।

সমাধান : ০৪

আপনি যে মডেলের মাদারবোর্ড ব্যবহার করেন, সেই মাদারবোর্ডটির ড্রাইভার ফাইল ইন্টারনেট থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন। এ ছাড়া বিভিন্ন কম্পিউটার বিক্রেতা অথবা সার্ভিস সেন্টার থেকে মাদারবোর্ডের ড্রাইভার সিডি সংগ্রহ করতে পারেন।

সমস্যা : ০৫

আমার কম্পিউটার চালু হতে অনেক সময় নেয় এবং একসময় কম্পিউটার হ্যাং হয়ে যায়। তখন কি-বোর্ডের F1 চাপলে কম্পিউটার চালু হয়। এ ছাড়া চালু হওয়ার পর কম্পিউটার খুব ধীরগতিতে কাজ করে।

সমাধান : ০৫

আপনি কম্পিউটারের বায়োস সেটিংসে প্রবেশ করে ফ্লপি ড্রাইভ অপশনটি ‘হড়হব’ করে দিন। এবার নতুন করে অপারেটিং সিস্টেম ইনস্টল করুন এবং উন্নত সংস্করণের লাইসেন্সকৃত অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করুন।

সমস্যা : ০৬

আমার কম্পিউটারে একসঙ্গে কয়েকটি ওয়ার্ড ফাইল চালু করলে কম্পিউটার হ্যাং হয়ে যায়। তবে মাঝে মাঝে কী-বোর্ডের ctrl+alt+delete কী চাপলে আবার চালু হয়।

সমাধান : ০৬

কম গতিসম্পন্ন কম্পিউটারে একসঙ্গে অনেক ফাইল চালু করলে এ ধরনের সমস্যা হয়। আপনি কম্পিউটারের র্যানম বাড়িয়ে নিন। এ ছাড়াও হার্ডডিস্কের অপ্রয়োজনীয় ফাইলগুলো মুছে ফেলুন এবং অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করুন।

সমস্যা : ০৭

আমি মজিলা ফায়ারফক্স ব্রাউজার ব্যবহার করি। কিছুদিন ধরে আমার ব্রাউজার চালু করার সময় ‘windows cannot find c:program filesjavajre6.exe’ বার্তা প্রদর্শন করে।

সমাধান : ০৭

আপনার ব্রাউজারটির ডেসটিনিশন অর্থাৎ ইনস্টল লোকেশনে সমস্যা রয়েছে। আপনি ব্রাউজারটি আনইনস্টল করে নতুন করে ইনস্টল করুন।

সমস্যা : ০৮

কম্পিউটারে বাংলা কম্পোজ করার সময় মাউসের কার্সার নিজ থেকে স্থান পরিবর্তন করে। অর্থাৎ মাউস ব্যবহার করে যেকোনো জায়গা নির্দিষ্ট করা হলেও কার্সার অন্য জায়গায় চলে যায়।

সমাধান : ০৮

আপনার কম্পিউটারটি ভাইরাসে আক্রান্ত। আপনি লাইসেন্স করা উন্নতমানের অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করে কম্পিউটার স্ক্যান করুন। মাউসটি অন্য কম্পিউটারে সংযোগ দিয়ে দেখুন ঠিক আছে কি না।

সমস্যা : ০৯

ইউএসবি পোর্টের মাধ্যমে কম্পিউটারের সঙ্গে ডিজিটাল ক্যামেরার সংযোগ দিলেও কম্পিউটার ক্যামেরাটি শনাক্ত করতে পারে না। তবে মাঝে মাঝে ‘new hardware found’ বার্তা প্রদর্শন করে।

সমাধান : ০৯

আপনার ক্যামেরার সঙ্গের ড্রাইভারটি কম্পিউটারে ইনস্টল করে নিন। কম্পিউটারের সঙ্গে ক্যামেরার সংযোগটি সঠিকভাবে রয়েছে কি না পরীক্ষা করুন। অনেক সময় অপারেটিং সিস্টেমের কারণে এ ধরনের সমস্যা হয়ে থাকে।

সমস্যা : ১০

আমার কম্পিউটারে এমপিফোর ফরমেটের কোনো ভিডিও চলে না। আমি ভিএলসি প্লেয়ার এবং উইন্ডোজ মিডিয়া প্লেয়ার ব্যবহার করি।

সমাধান : ১০

আপনার মিডিয়া প্লেয়ারে সমস্যা রয়েছে। ইন্টারনেট থেকে এমপিফোর ফরমেটে কাজ করতে সক্ষম প্লেয়ার কম্পিউটারে ইনস্টল করুন। এ ছাড়াও আপনার এমপিফোর ফরমেটের ভিডিওগুলো ঠিক আছে কি না তা যাচাই করুন।

সমস্যা : ১১

আমার কম্পিউটারের ব্যাকগ্রাউন্ড সেটিংস বারবার কালো হয়ে যায়। ব্যাকগ্রাউন্ড সেটিংস ঠিক করার কিছুক্ষণ পর আবারও একই ধরনের সমস্যা হয় এবং “you may be a victim of software counterfeiting” বার্তা প্রদর্শন করে।

সমাধান : ১১  

কম্পিউটারে নতুন করে অপারেটিং সিস্টেম ইনস্টল করুন। এ ছাড়া মনিটরটি ঠিক আছে কি না দেখে নতুন করে সংযোগ দিন এবং মানসম্পন্ন অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করে হার্ডডিস্কের সব ড্রাইভ স্ক্যান করুন।

সমস্যা : ১২

নতুন করে উইন্ডোজ ইনস্টল করা হলেও কম্পিউটার আগের মতোই ধীরগতিতে কাজ করে। এ ছাড়া মাঝেমধ্যে কম্পিউটার চালুর সময় ‘diskboot failure’ বার্তা প্রদর্শন করে।

সমাধান : ১২

আপনার কম্পিউটারের হার্ডডিস্কের সংযোগ সঠিকভাবে লাগিয়ে নিন। হার্ডডিস্ক থেকে অপ্রয়োজনীয় ফাইলগুলো মুছে ফেলুন। গতি বাড়ানোর জন্য র্যা মের ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে পারেন।

সমস্যা : ১৩

আমার কম্পিউটারের সাউন্ড সিস্টেম ব্যবহার করে স্পিকারে ঠিকভাবে গান শোনা যায়। তবে হেডফোনের সংযোগ দেওয়া হলে কম্পিউটারে চালু থাকা অডিও বা ভিডিও ফাইল বন্ধ হয়ে যায়।

সমাধান : ১৩

আপনার হেডফোনটিতে সম্ভবত সমস্যা রয়েছে। হেডফোনের সংযোগস্থলে বিদ্যুৎ আসে কি না দেখে নিন। সাউন্ড সিস্টেমে ভালো মানের স্পিকার এবং হেডফোন ব্যবহার করুন।

সমস্যা : ১৪

কম্পিউটারে সংরক্ষণ করা বিভিন্ন ওয়ার্ড ফাইল পরবর্তী সময়ে খুলতে গেলে ওয়ার্ড প্রোগাম বন্ধ হয়ে যায়। এমনকি বারবার চেষ্টা করলে কম্পিউটার হ্যাং হয়ে যায়।

সমাধান :  ১৪

আপনার কম্পিউটারে ভাইরাস রয়েছে। এ কারণে সংরক্ষণ করা বিভিন্ন ওয়ার্ড ফাইল খুলছে না। উন্নতমানের লাইসেন্স করা অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করুন এবং নতুন করে অপারেটিং সিস্টেম ইনস্টল করুন।

সমস্যা : ১৫

আমার প্রিন্টারে রঙিন প্রিন্ট করার ক্ষমতা থাকলেও প্রিন্ট করার সময় শুধু সাদাকালো প্রিন্ট বের হয়। আমি প্রিন্টারে কালি পরিবর্তন করেছি কিন্তু কোনো লাভ হয়নি।

সমাধান : ১৫

আপনি প্রিন্টারের কালি পরিবর্তন বলতে কি রিফিল করেছেন? তা হলে এ ধরনের সমস্যা হয়। আপনি প্রিন্টারের জন্য নতুন কালো এবং রঙিন কাট্রর্িজ কিনে নতুন করে ইনস্টল করুন।

সমস্যা : ১৬

আমার কম্পিউটার থেকে টেক্সট ফাইল প্রিন্ট করা গেলেও কোনো ধরনের জেপিইজি (jpeg) ফরম্যাটের ফাইল প্রিন্ট হয় না। এমনকি ইন্টারনেট থেকে সরাসরি কোনো টেক্সট ফাইলও প্রিন্ট করা যায় না।

সমাধান : ১৬

আপনি জেপিইজি ফাইলটি আগে ফটোশপ অথবা ইলাস্ট্রেটর ব্যবহার করে খুলুন। এবার জেপিইজি ফরম্যাটের ফাইল প্রিন্ট করা যায় কি না দেখুন। ইন্টারনেট থেকে প্রিন্ট করার সময় ফাইলটিতে প্রিন্ট অপশন আছে কি না দেখুন।

সমস্যা : ১৭

পেনড্রাইভ থেকে কোনো ফাইল কম্পিউটারে কপি করা যায় না। কিন্তু কম্পিউটার থেকে সব ধরনের ফাইল পেনড্রাইভে স্থানান্তর করা যায়। অনেক সময় পেনড্রাইভের সব ফাইলও দেখা যায় না।

সমাধান :  ১৭

আপনার পেনড্রাইভটি ভাইরাসে আক্রান্ত। লাইসেন্সকৃত উন্নতমানের অ্যান্টিভাইরাস দিয়ে একে আগে মুক্ত করুন এবং পিসিটিও স্ক্যান করে নিন।

সমস্যা : ১৮

আমার কম্পিউটার চালু হওয়ার কিছুক্ষণ পর হঠাৎ করে হ্যাং হয়ে যায় এবং এক ধরনের আওয়াজ করে। কম্পিউটার চালু করার জন্য রিস্টার্ট দিলে অনেকক্ষণ পর চালু হয়।

সমাধান :  ১৮

আপনার কম্পিউটারের কেসিংয়ের সঙ্গে যুক্ত পাওয়ার সাপ্লাইটি পরিবর্তন করতে হবে। এ ছাড়া হার্ডডিস্কের ‘সি ড্রাইভ’ ফরম্যাট করার পাশাপাশি নতুন করে অপারেটিং সিস্টেম ইনস্টল করুন।

সমস্যা : ১৯

কম্পিউটার চালু করলে মনিটরে কোনো কিছু দেখা যায় না। এমনকি কম্পিউটার রিস্টার্ট করলেও রিস্টার্ট হয় না। তবে কম্পিউটারের পাওয়ার সুইচ বন্ধ করলে কম্পিউটার বন্ধ করা যায়।

সমাধান : ১৯

আপনার কম্পিউটারের সঙ্গে মনিটরের সংযোগ কেব্ল্ ঠিক আছে কি না তা পরীক্ষা করুন। এবার মাদারবোর্ড থেকে প্রসেসরটি খুলে প্রসেসর ফ্যানটি পরিষ্কার করে লাগিয়ে নিন। এবার মাদারবোর্ড থেকে র্যা ম খুলে পরিষ্কার করে আবার সংযোগ দিন।

সমস্যা : ২০

কম্পিউটারে ঠিকমতো কাজ করা গেলেও যখন কম্পিউটার চালু করা হয়, তখন কম্পিউটারের ঘড়িতে ভুল সময় প্রদর্শন করে।

সমাধান :  ২০

আপনি ডেস্কটপের নিচের বারে কম্পিউটারের ঘড়ি আইকনটিতে ডাবল ক্লিক করুন। ঘড়িটির বিস্তারিত তথ্য আপনি দেখতে পারবেন। এবার ঘড়িটির সময়, তারিখ ও সাল পরিবর্তন করে নিন।

সমস্যা : ২১

আমার ল্যাপটপে আগে গেইম খেলা গেলেও Windows XP Servise Pack 2 সেটআপ করার পর থেকে আর কোনো গেইম চলছে না।

সমাধান :  ২১

আপনার Windows XP Servise Pack 2-এর সব ফাংশন সঠিকভাবে ইনস্টল হয়নি বলে এ ধরনের সমস্যা হচ্ছে। আপনি নতুন করে অপারেটিং সিস্টেম এবং গ্রাফিকস কার্ডের ড্রাইভার সঠিকভাবে ইনস্টল করুন।

সমস্যা : ২২

আমি কম্পিউটারে ফায়ারফঙ্ ব্রাউজার ব্যবহার করি। কিন্তু কিছুদিন ধরে একসঙ্গে কয়েকটি ওয়েবপেইজ চালু করতে গেলে ফায়ারফঙ্ হঠাৎ করে বন্ধ হয়ে যায়। এমনকি মাঝে মাঝে কম্পিউটার হ্যাং হয়ে যায়।

সমাধান : ২২

আপনাকে ফায়ারফক্সের সর্বশেষ সংস্করণের ভার্সণ ব্যবহার করতে হবে পাশাপাশি ভাল মানের এন্টিভাইরাস ব্যবহার করুন।

সমস্যা : ২৩

ইন্টারনেট ব্যবহারের সময় কম্পিউটারের হার্ডডিস্ক থেকে কোনো ফাইল মেইলে অ্যাটাচ করা যায় না। তবে মেইল থেকে ফাইল হার্ডডিস্ক ডাউনলোড করা যায়।

সমাধান : ২৩

আপনার ব্রাউজারটিতে সমস্যা রয়েছে। আপনি হালনাগাদ সংস্করণের ব্রাউজার ব্যবহার করুন। এ ছাড়া সব সময় দ্রুতগতির ইন্টারনেট সংযোগ ব্যবহার করার চেষ্টা করুন।

সমস্যা : ২৪

কম্পিউটারে পেনড্রাইভ প্রবেশ করালেই কম্পিউটার হ্যাং হয়ে যায়। আমি কম্পিউটারে হালনাগাদ সংস্করণের অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করি এবং নিয়মিত কম্পিউটার ও পেনড্রাইভ ভাইরাস স্ক্যান করি।

সমাধান :  ২৪

আপনি যে অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করছেন তা আপনার কম্পিউটারে থাকা ভাইরাসকে প্রতিরোধ করতে পারছে না। অন্য প্রতিষ্ঠানের অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করে কম্পিউটার এবং পেনড্রাইভ ভাইরাসমুক্ত করুন। সমাধান না হলে নতুন করে অপারেটিং সিস্টেম ইনস্টল করুন।

সমস্যা : ২৫

কম্পিউটারে কোনো ওয়ার্ড ফাইল তৈরির পর সেভ করলে একটির বদলে দুটি ফাইল সেভ হয়। পরবর্তী সময়ে ফাইলটি ব্যবহার করতে গেলে কম্পিউটার হ্যাং হয়ে যায়।

সমাধান : ২৫

ভাইরাসের কারণে আপনার ওয়ার্ড ফাইলে একাধিক ফাইল সেভ হচ্ছে। হালনাগাদ সংস্করণের লাইসেন্সকৃত অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহারের পাশাপাশি আপনি নতুন করে অফিস ইনস্টল করুন।

সমস্যা : ২৬

আমার কম্পিউটারে অ্যাডোবি ইলাস্ট্রেটর ১০.০ সংস্করণের সফটওয়্যার ব্যবহার করি। কিন্তু সফটওয়্যারটি একবার আনইনস্টল করলে আর ইনস্টল করা যায় না। পরবর্তী সময়ে আমাকে আবার নতুন করে উইন্ডোজ সেটআপ দিতে হয়।

সমাধান : ২৬

পিসিতে অপারেটিং সিস্টেম ইনস্টল করার সময় লক্ষ করবেন কোনো ফাইল যেন মিসিং না হয়। ইলাস্ট্রেটর আনইনস্টল করার সময় দেখতে সম্পূর্ণভাবে আনইনস্টল হয়েছে কি না।

সমস্যা : ২৭

আমার ল্যাপটপে উইন্ডোজ এঙ্পি ইনস্টল করার সময় সাউন্ড ড্রাইভার সঠিকভাবে ইনস্টল হলেও সাউন্ড আসে না। আমি আগে উইন্ডোজ ৭ ব্যবহার করতাম।

সমাধান : ২৭

অনেক ল্যাপটপে নরম্যাল এঙ্পি সঠিকভাবে কাজ করে না, সে ক্ষেত্রে আপনাকে আপডেট উইন্ডোজ ব্যবহার করতে হবে। আপনি আবার উইন্ডোজ ৭ ইনস্টল করে দেখুন।

সমস্যা : ২৮

কম্পিউটারে কাজ করার সময় কোনো ফাইল সেভ করতে অনেক বেশি সময় প্রয়োজন হয়। মাঝেমধ্যে কম্পিউটার রিস্টার্ট হয়ে যায় এবং কয়েকবার চেষ্টার পর কম্পিউটার চালু করা যায়।

সমাধান : ২৮

আপনি ডিস্ক ক্লিনআপ ব্যবহার করে পিসিটি থেকে অপ্রয়োজনীয় ফাইলগুলো মুছে ফেলুন। সম্ভব হলে পিসিটি আপডেট করে নিন। পাওয়ার সাপ্লাই পরিবর্তন করে নিন।

সমস্যা : ২৯

কম্পিউটারে পেনড্রাইভ প্রবেশ করালেই কম্পিউটার হ্যাং হয়ে যায়। আমি কম্পিউটারে হালনাগাদ সংস্করণের অ্যান্টি-ভাইরাস ব্যবহার করি এবং নিয়মিত কম্পিউটার ও পেনড্রাইভ ভাইরাস স্ক্যান করি।

সমাধান :  ২৯

আপনি যে অ্যান্টি-ভাইরাস ব্যবহার করছেন, তা আপনার কম্পিউটারে থাকা ভাইরাসকে প্রতিরোধ করতে পারছে না। অন্য প্রতিষ্ঠানের অ্যান্টি-ভাইরাস ব্যবহার করে কম্পিউটার এবং পেনড্রাইভ ভাইরাসমুক্ত করুন। সমাধান না হলে নতুন করে অপারেটিং সিস্টেম ইনস্টল করুন।

সমস্যা : ৩০

আমার কম্পিউটারে দুটি হার্ডডিস্ক ব্যবহার করা হলেও একটি হার্ডডিস্ক প্রদর্শন করে। তবে হার্ডডিস্ক খুলে আবার সংযোগ দিলে তখন দুটি হার্ডডিস্কই প্রদর্শন করে। কিছুদিন পর আবার একটি হার্ডডিস্ক প্রদর্শন করে।

সমাধান :  ৩০

কম্পিউটারের একটি হার্ডডিস্কের জাম্পার খুলে দিন। যে হার্ডডিস্কটি প্রদর্শন করে না, এর কেব্ল্গুলো পরিবর্তন করে ভালোভাবে সংযোগ দিন।

সমস্যা : ৩১

আমি কোর আই৩ প্রসেসরের কম্পিউটার ব্যবহার করি। কিন্তু আমার কম্পিউটারে সব গেইম ভালোভাবে খেলা যায় না। বিশেষ করে ফুটবল, ক্রিকেট, জিটিএ : ভাইস সিটি ইত্যাদি গেইম খুব ধীরে ধীরে চলে এবং স্ক্রিন মাঝেমধ্যে আটকে যায়।

সমাধান :  ৩১

শুধু উচ্চক্ষমতার প্রসেসর ব্যবহার করলেই সব ভিডিও গেইম সঠিকভাবে খেলা যায় না। উচ্চ রেজ্যুলেশনের ভিডিও গেইম খেলার জন্য উচ্চক্ষমতার গ্রাফিকস কার্ড এবং র্যাচম প্রয়োজন হয়। গেইমের চাহিদানুযায়ী আপনার কম্পিউটারে গ্রাফিকস কার্ড এবং র্যাচম ব্যবহার করুন।

সমস্যা : ৩২

আমি ইউম্যক্স অষ্ট্রা ৫৬০০ মডেলের স্ক্যানার ব্যবহার করি। কিন্তু কিছুদিন ধরে স্ক্যানারটি ব্যবহারের সময় ‘ব্লগ’ দেখাচ্ছে। স্ক্যানারটির ড্রাইভার মুছে আবার নতুন করে ইনষ্টল করেছি। কিন্তু সমস্যার সমাধান হয় নি।

সমাধান : ৩২

আপনার স্ক্যানারটিতে হার্ডওয়্যারজনিত সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে, যা স্ক্যানারটি পরীক্ষা না করলে শনাক্ত করা সম্ভব নয়। স্ক্যানারটির বিক্রয়োত্তর সেবার মেয়াদ থাকলে বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানের কাছে নিয়ে যান।

সমস্যা : ৩৩

আমার কম্পিউটারে বাংলা ফন্ট ইনষ্টল করা থাকলেও ইন্টারনেটে কোনো সংবাদপত্র পড়তে পারিনা। আমি বেশ কয়েকবার ফন্ট ইনষ্টল করলেও সমস্যার সমাধান হয় নি।

সমাধান : ৩৩

কম্পিউটার বাংলা ফন্ট থাকলে সেটাকে ফন্ট অপশনে সেটআপ করে নিতে হবে। আপনি নতুন করে বাংলা ফন্টের যেকোনো সফটওয়্যার ইনস্টল করে ফন্ট অপশনে সেট করুন।

সমস্যা : ৩৪

কম্পিউটারে গান শোনার সময় শব্দ নিজ থেকেই কমবেশি হয়। আবার মাঝেমধ্যে কোনো গান চালু করলে কোনো শব্দ শোনা যায় না।

সমাধান :  ৩৪

আপনার স্পিকারের জ্যাকটি সম্ভবত সঠিকভাবে সংযোগ দেওয়া হয়নি। সঠিকভাবে স্পিকারের জ্যাকটি সংযোগ দেওয়ার পর কাজ না হলে স্পিকারের কেব্ল্টি পরিবর্তন করতে হবে।

সমস্যা : ৩৫

আমার কম্পিউটারের মাই কম্পিউটার থেকে কোনো ড্রাইভ খোলা যাচ্ছে না। তবে ডেস্কটপে থাকা ফাইল ব্যবহারের পাশাপাশি এঙ্প্লোর অপশন ব্যবহার করে ড্রাইভগুলো খোলা যায়।

সমাধান : ৩৫

আপনি প্রথমে ভাইরাস স্ক্যান করে নিন। কাজ না হলে নতুন অপারেটিং সিস্টেম ইনস্টল করুন। আগের ইনস্টল অপারেটিং সিস্টেমটির ফাংশন মিসিং আছে।

সমস্যা : ৩৬

আমি কম্পিউটারে উইন্ডোজ এঙ্পি ব্যবহার করি। আমার কম্পিউটারে নতুন করে উইন্ডোজ এঙ্পি ইনস্টল করার পর যেসব গেইম আমি আগে খেলতাম, তা চালু হচ্ছে না। গেইম চালুর সময় ‘দি অ্যাপ্লিকেশন হ্যাজ ফেইলড টু স্টার্ট’_এ রকম একটি বাক্য দেখায়।

সমাধান :  ৩৬

কোনো কম্পিউটারে নতুন করে যেকোনো সফটওয়্যার ইনস্টল করলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে তা সি ড্রাইভে ইনস্টল হয়। সে জন্য আপনি উইন্ডোজ ইনস্টল করায় সফটওয়্যারগুলো কাজ করছে না। নতুন করে সফটওয়্যার ও হার্ডওয়্যার ইনস্টল করুন।

সমস্যা : ৩৭

আমি কম্পিউটারে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ইন্টারনেট ব্যবহার করি। কিন্তু যখনই আমি মোবাইল ফোন কম্পিউটারের সঙ্গে যুক্ত করি তখন স্বয়ংক্রিয়ভাবে কম্পিউটারে তথ্য বিনিময় হয়।

সমাধান :  ৩৭

কম্পিউটারের প্লাগ অ্যান্ড প্লে চালু থাকায় আপনার মোবাইল ফোন কম্পিউটারের সঙ্গে যুক্ত করার সঙ্গে সঙ্গে তথ্য বিনিময় হচ্ছে। আপনি প্লাগ অ্যান্ড প্লে সুবিধা বন্ধ করে দিলে এ সমস্যা হবে না।

সমস্যা : ৩৮

কম্পিউটার বন্ধ করার জন্য শাট ডাউন কমান্ড দেওয়ার পর বন্ধ হতে প্রায় পাঁচ মিনিট সময় নেয়। এ ছাড়া পরবর্তী সময়ে কম্পিউটার চালু করার সময়ও আগের তুলনায় অনেক ধীরগতিতে চালু হয়।

সমাধান : ৩৮

আপনার কম্পিউটারটির কনফিগারেশন জানালে ভালো হতো। আপনি নিয়মিত ডিস্ক ক্লিনআপ ব্যবহার করে আপনার কম্পিউটার থেকে অপ্রয়োজনীয় ফাইলগুলো মুছে ফেলুন।

সমস্যা : ৩৯

কম্পিউটারে কাজ করার সময় মাঝেমধ্যে ‘নট রেসপন্ডিং’ বার্তা প্রদর্শন করে। ওয়ার্ড ফাইলে কাজ করার সময় এ ধরনের সমস্যা হয়ে থাকে। আমার কম্পিউটারে ইন্টারনেট সংযোগ নেই।

সমাধান :  ৩৯

আপনার কম্পিউটারে ব্যবহার করা এমএস অফিস সফটওয়্যারটি ঠিকমতো কাজ করছে না। নতুন করে ইনস্টল করুন এবং অপ্রয়োজনীয় ফাইলগুলো মুছে ফেলুন।

সমস্যা : ৪০

আমার কম্পিউটারে মাদারবোর্ডের সিডি ইনস্টল হচ্ছে না; যার কারণে শব্দ শোনা যায় না। এ ছাড়া কম্পিউটার বন্ধ করার জন্য কমান্ড দিলেও বন্ধ না হয়ে ‘It is now safe to turn off your computer’ বার্তা প্রদর্শন করে।

সমাধান : ৪০

আপনার পিসিতে অপারেটিং সিস্টেমটি সঠিকভাবে ইনস্টল হয়নি। আপনি নতুন করে উইন্ডোজ এঙ্পি উন্নতমানের সিডি থেকে ইনস্টল করুন এবং কোনো ফাইল যেন বাদ না পড়ে সেদিকে লক্ষ রাখুন।

সমস্যা : ৪১

কম্পিউটারের হার্ডডিস্কে তিনটি পার্টিশন অর্থাৎ সিডি এবং ই-ড্রাইভ থাকলেও দুটি ড্রাইভে প্রবেশ করা যায় না। তবে কোনো ফাইল ইন্টারনেট থেকে ডাউনলোড করার সময় সেই ড্রাইভগুলোতে ডাউনলোড করা যায়।

সমাধান :  ৪১

আপনার কম্পিউটারের হার্ডডিস্কটি নতুন করে পার্টিশন করতে হবে। তারপর প্রতিটি ড্রাইভ ফরম্যাট করে নিন। এবার নতুন করে অপারেটিং সিস্টেম ইনস্টল করে প্রয়োজনীয় ড্রাইভগুলো সঠিকভাবে ইনস্টল করুন।

সমস্যা : ৪২

আমি ইয়াহু মেইল ব্যবহার করি। বেশ কিছুদিন ধরে আমার ই-মেইল অ্যাকাউন্টে প্রবেশ করার পর মেইল পড়া গেলেও মেইলের সঙ্গে থাকা কোনো অ্যাটাচমেন্ট পড়া যায় না। অর্থাৎ অ্যাটাচমেন্টে ক্লিক করার পর অনেক সময় পার হয়ে গেলেও তা চালু হয় না।

সমাধান :  ৪২

যদি আপনি মনে করেন আপনার কম্পিউটার ভাইরাসমুক্ত, তাহলে নতুন করে অপারেটিং সিস্টেমটি ইনস্টল করার পাশাপাশি হালনাগাদ সংস্করণের ব্রাউজার ইনস্টল করুন।

সমস্যা : ৪৩

কম্পিউটারের হার্ডডিস্ক থেকে কোনো ফাইল পেনড্রাইভে স্থানান্তর করা যায় না। তবে পেনড্রাইভ থেকে হার্ডডিস্কে ফাইল স্থানান্তর করা যায়।

সমাধান : ৪৩

আপনার পেনড্রাইভটি প্রথমে ভাইরাসমুক্ত করুন। সমস্যার সমাধান না হলে আপনার পেনড্রাইভটি নতুন করে ফরম্যাট করতে হবে। প্রয়োজনে উন্নতমানের অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করে আপনার কম্পিউটারে ভাইরাস স্ক্যান করে নিন।

সমস্যা : ৪৪

কম্পিউটারে ওয়েবক্যাম চালু করলেই কম্পিউটার খুব ধীরগতিতে কাজ করে। এমনকি মাঝেমধ্যে কম্পিউটার রিস্টার্ট হয়ে যায়।

সমাধান :  ৪৪

ইন্টারনেটের গতি যদি ভালো মানের না হয়, তাহলে কম্পিউটার ধীরে কাজ করবে। এ জন্য আপনি দ্রুতগতির ইন্টারনেট ব্যবহারের পাশাপাশি র্যা মের গতি বাড়িয়ে নিন। কম্পিউটারের প্রসেসরের ফ্যানটি সঠিকভাবে চলে কি না তা পরীক্ষা করুন।

সমস্যা : ৪৫

আমি কম্পিউটারে একটি অতিরিক্ত হার্ডডিস্ক ব্যবহার করি। কম্পিউটার চালু অবস্থায় বিদ্যুৎ চলে যাওয়ার পর হার্ডডিস্কটির ড্রাইভগুলো আর দেখা যাচ্ছে না। কিন্তু অন্য হার্ডডিস্কের ড্রাইভগুলো ঠিকই দেখা যাচ্ছে। পরে হার্ডডিস্কটি নতুন করে পার্টিশন করলেও সি ড্রাইভ বারবার মুছে যাচ্ছে।

সমাধান : ৪৫

আপনি অতিরিক্ত হার্ডডিস্কটির সঙ্গে কম্পিউটারের আবার সংযোগ দিন। সমস্যার সমাধান না হলে হার্ডডিস্কটির জাম্পার খুলে সংযোগ দিতে হবে। হার্ডডিস্ক পার্টিশন করার সময় সঠিকভাবে পার্টিশন করুন।

সূত্র: নেট

Advertisements

গুগলের যত অজানা সার্ভিস

গুগল ফ্রেন্ড কানেক্ট
এই সার্ভিসের কাজ হলো বিভিন্ন সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং ও অন্যান্য সাইটে ছড়িয়ে থাকা আপনার বন্ধুদের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করা। এতে আবার কমেন্ট ট্রান্সলেশন অপশনও আছে। এতে আপনার বন্ধু অন্য কোনো ভাষায় কমেন্ট করলেও আপনি তা ট্রান্সলেট করে দেখতে পারবেন। কেনাকাটার সাইটে কোনো কিছু কেনার আগে আপনি দেখতে পারবেন আপনার কোনো বন্ধু আগেই এই প্রোডাক্টটি কিনেছে কিনা বা কিনে থাকলে সেটা সম্পর্কে তার মতামত কী। নিজের প্রোফাইলসহ কমেন্ট করতে পারবেন সাপোর্টেড বগ বা নিউজ সাইটগুলোতে।

.

গুগল ফাস্ট ফ্লিপ
গুগল ফাস্ট ফ্লিপ হলো একটি নিউজ অ্যাগরিগেটর সার্ভিস। গুগল নিউজের সঙ্গে এর পার্থক্য হলো এতে আপনি পাবলিশার বা ঘটনা অনুসারে সাজানো নিউজ পাবেন। খবরগুলোর নেভিগেশন সিস্টেম গুগল নিউজের মতো হলেও ক্লিক করলে সংশ্লিষ্ট সাইটে চলে যাবে। অনেকটা ম্যাগাজিনের পাতা উল্টানোর মতো আপনি খুব সহজেই মাউস স্ক্রল করে বা কার্সরের মাধ্যমে মুভ করতে পারবেন। ঠিকানা : http://fastflip.googlelabs.com

.

গুগল গ্যাজেটস
গুগল গ্যাজেটের মাধ্যমে ওয়েবে বা নিজের ডেস্কটপে ডায়নামিক কনটেম্লট যোগ করা সম্ভব। হতে পারে তা নিজের আইগুগল পেজ, ব্লগ, ওয়েব পেজ বা গুগল ডেস্কটপ। যে কেউ নিজের তৈরি কনটেম্লট পাবলিশ করতে পারেন এর মাধ্যমে।

.

গুগল লাইভলি
বর্তমানে এ সার্ভিসটি বন্ধ। এটি গুগলের ভার্চুয়াল দুনিয়া। এতে আপনি আপনার নিজস্ব রুম তৈরি করতে পারেন। সেটি ইচ্ছামত সাজাতে পারেন। ডিজাইন করতে বা রং বদলাতে পারেন, পিকাসা বা ইউটিউব থেকে ছবি দেয়ালের ফ্রেমে ঝুলাতে পারেন। একসঙ্গে ২০ জন পর্যন্ত চ্যাট করা সম্ভব রুমগুলোতে। আপনি এবং অন্যরা এক একটি কার্টুন ক্যারেক্টার হিসেবে রুমে একে অন্যকে দেখতে পারবেন এবং আপনাদের কথাগুলো বাবল হিসেবে দেখা যাবে।

.

গুগল ল্যাটিচুড
গুগলের লোকেশন ট্র্যাকিং সার্ভিস। মোবাইল ফোনে গুগল ম্যাপস ব্যবহার করে একজন ব্যবহারকারী তার নিজের বর্তমান অবস্থান অন্যদের জানাতে পারেন। ব্যাকবেরি, উইন্ডোজ মোবাইল, অ্যান্ড্রোয়েড, আইফোন আর সিম্বিয়ান প্লাটফর্মে কাজ করে এটি। ফাঁকিবাজির ব্যবস্থাও আছে কিন্তু আপনি চাইলে শুধু শহরের নাম দেখাতে পারেন, এমনকি নিজে যে কোনো লোকেশন ম্যানুয়ালি লিখেও দিতে পারেন! ঢাকায় বসে সিডনি লিখে দিলে সবাই দেখবে আপনি সিডনিতে। ঠিকানা : http://www.google.com/latitude

.

গুগল মার্স
আমাদের মতো নাদানদের মঙ্গল গ্রহ দেখার সুব্যবস্থা করে দিয়েছে এই সার্ভিস। বিভিন্ন উত্স থেকে সংগ্রহ করা মঙ্গল গ্রহের ছবি নিয়ে ব্রাউজার আর গুগল আর্থ ভিত্তিক সার্ভিস এটি। ব্রাউজারে দ্বিমাত্রিক হলেও গুগল আর্থে হাই রেজুলেশন ত্রিমাত্রিক ছবি দেখতে পাবেন আপনি। দেখতে চাইলে http://mars.google.com

.

গুগল মুন
গুগল মার্সের মতো একই সার্ভিস চাঁদ দেখার জন্য। ছবির কালেকশন আর কোয়ালিটি স্বভাবতই মার্সের চেয়ে রিচ। http://moon.google.com

.

গুগল মডারেটর
গুগলের মডু সার্ভিস। এটা একটা সার্ভে বা কোশ্চেন এবং তার ফিডব্যাক ম্যানেজমেন্ট টুল। এর মাধ্যমে ব্যাপক আকারে প্রশ্ন, সাজেশন বা আইডিয়া কালেক্ট করা, সাজানো বা বিশ্লেষণ করা যায়। কোনো বিষয়ের ওপর বা প্রশ্নে রেটিং বা ভোটিংয়ের ব্যবস্থাও আছে। http://moderator.appspot.com

.

অরকুট
গুগলের সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট। ফেসবুকের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় পাত্তা না পেলেও এটি বেশ জনপ্রিয়। এতে ফেসবুকের মতোই প্রোফাইল তৈরি, ছবি, ভিডিও শেয়ারিং, ফ্রেন্ডশিপ করা যায়। এতে থিম পরিবর্তনের সুবিধা রয়েছে। গুগলের অন্য সার্ভিসের সঙ্গে ইনট্রিগেশন করা যায় একে। গুগল টক ব্যবহার করে চ্যাটিং আর ফাইল শেয়ারিংও সম্ভব। করা যায় ভিডিও চ্যাটও। বন্ধুদের রেটিং করা যায়। ফেসবুকের সঙ্গে একটা বড় পার্থক্য হলো, আপনি যাদের ইগনোর লিস্টে রেখেছেন তারা ছাড়া যে কেউ যে কারও প্রোফাইল দেখতে পারবে, বন্ধু না হলেও। http://www.orkut.com

.

গুগল স্কলার
গুগল স্কলার একটি স্কলার আর্টিকেল, টেকনিক্যাল রাইটিং, রিপোর্ট আর থিসিস সার্চ ইঞ্জিন। ডিসিপ্লিন ভিত্তিক স্কলার ফুল টেক্সট কনটেম্লট সার্চ করা যায় এতে। বিশ্ববিখ্যাত অসংখ্য জার্নাল থেকে ফুল পাবলিকেশন পাওয়া যায়।

.

গুগল সাইটস
নবিসদের জন্য ওয়েবসাইট তৈরির সার্ভিস। খুব সহজে কোনোরূপ কোডিং জানা ছাড়াই ওয়েবপেজ তৈরি আর পাবলিশ করা যায় গুগলের সার্ভারে। খুব সহজ থিম, ফন্ট, লেআউট কাস্টমাইজেশন করা গেলেও হাই কোয়ালিটি পেজ বা ডায়নামিক কিছু করা সম্ভব নয়। ফ্রি ইউজারদের ১০০ মেগাবাইট স্টোরেজ আর গুগল ডক, ইউটিউব, ক্যালেন্ডার থেকে কনটেম্লট যোগ করা যায়। রয়েছে অ্যাডসেন্সও!

.

গুগল স্ট্রিট ভিউ
গুগল ম্যাপস আর গুগল আর্থের একটি ফিচার এটি। বিশ্বের বিভিন্ন বড় বড় শহরের রাস্তাঘাট একেবারে ৩৬০ ডিগ্রি ঘুরে দেখা যায়। স্যাটেলাইট ইমেজ, জাহাজ বা গাড়ি থেকে তোলা ছবি ব্যবহার করা হয়েছে এতে। রয়েছে জুম করার সুবিধাও।

.

গুগল স্কোয়াড
গুগল স্কোয়াড একটি ডাটা এক্সট্রাকশন সার্ভিস। ওয়েব থেকে আপনার দরকারি ডাটা কালেক্ট করে স্প্রেডশিট আকারে দেবে এটি। সার্ভিসটি এখনও বেটা পর্যায়ে আছে। http://www.google.com/squared

.

গুগল ট্রেন্ড
কোনো একটি নির্দিষ্ট বিষয় জনমনে কতটুকু আলোড়ন তুলছে সেটা দেখার সেবা। গ্রাফের মাধ্যমে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে কেন কি-ওয়ার্ড দিয়ে করা সার্চের পরিমাণ দেখা যায়। মোট সার্চের পরিমাণের কত ভাগ এই কি-ওয়ার্ড দিয়ে সার্চ করেছে তার একটা তুলনামূলক চিত্র পাওয়া যায় এ থেকে।

.

ভেবো
মিউজিক ভিডিও সার্ভিস। ইউটিউব আর ইউনিভার্সাল স্টুডিওর যৌথ উদ্যোগে মিউজিক ভিডিও বিক্রির ব্যবস্থা। http://www.vevo.com

মাত্র ২ হাজার টাকা দামের কম্পিউটার

ব্রিটেনের একটি দাতব্য প্রতিষ্ঠান এটি তৈরি করছে। খুবই ছোট এ কম্পিউটার টি সামনের বছর বাজারে আসবে বলে জানিয়েছেন দ্য রাসপবেরি পিআই ফাউন্ডেশন এ প্রতিষ্ঠানের প্রধান ডেভিড ব্রাবেন। তিনি আরও বলেন এই কম্পিউটারটির আকার একটি ইউএসবি মেমোরি সমান। আনেক ছোট হওয়ায় কম্পিউটারটি পকেটে করেই বহন করা যাবে। কম্পিউটারটির সাথে কোন মনিটর নেই কিবোর্ড ও নেই । কিবোর্ড লাগানোর জন্য একসাইডে একটি usb পোর্ট আছে। মনিটর লাগানর জন্য এর এক পাসে একটি HDMI পোর্ট আছে।

.

.

কি কি আছে ছোট এ কম্পিউটারে

১. ১২ mega pixl ক্যামেরা

২. ৭০০ mhz প্রসেসর

৩. ১২৮ mb রাম

৪. যে কোন টেলিভিশনকে কম্পিউটারটির মনিটর হিসেবে ব্যবহার করা যাবে।

৫. উবুন্তু, সহ সব ধরনের ওপেন সোর্স সফটওয়্যার ব্যবহার করা যাবে

সব সুবিধা থাকার পরও কম্পিউটারটির দাম কম হবে এ ব্যাপারে ডেভিড ব্রাবেন বলেন মুলত এটি স্কুল শিক্ষার্থীদের মধ্যে কম্পিউটার বিজ্ঞান এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে জ্ঞান বিস্তার করা তাদের মুল ল্যক্ষ কম্পিউটারটির দাম কম হওয়ার শিক্ষার্থীদের প্রোগ্রামিং এবং কম্পিউটিং বিষয়ে আগ্রহী হয়ে উঠবে এবং এটি শিক্ষার্থীরা সহজে কিনতে পারবে।

আরও জানতে এবং ভিডিও দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

সূত্র:নেট

পৃথিবীতে মহাকাশের সৌরশক্তি!

মহাকাশ থেকেই সৌরশক্তি সংগ্রহ করে মাইক্রোওয়েভে রুপান্তর করে সেটি পৃথিবীতে ব্যবহার করা যাবে। জাপানি অ্যারোস্পেস এক্সপেস্নারেশন এজেন্সি, মিতসুবিসি ইলেকট্রিক করপোরেশন এবং কিয়েটো ইউনিভার্সিটির গবেষকরা এই সৌরশক্তির উৎপাদন গবেষণায় একত্রে কাজ করছেন। গবেষকদের বরাতে জানা গেছে, কিয়োটো ইউনিভার্সিটিতে গবেষকরা নতুন এই পদ্ধতিতে সৌরশক্তি ব্যবহার করে বিদু্যৎ উৎপাদন করবেন। গবেষণা সফল হলে মহাশূন্যে পাঠানো স্যাটেলাইটের মাধ্যমে বিদু্যৎ উৎপাদন করা সম্ভব হবে। উলেস্নখ্য, ২০১৬ সালে এই স্যাটেলাইট পাঠানো হবে। গবেষকরা জানান, এই পদ্ধতিতে বিদু্যৎ উৎপাদন করা গেলে তা ব্যবহূত সৌরপ্যানের চেয়ে ১০গুণ বেশি কার্যকর হবে।

স্বাস্থ্যখাতে থ্রিজি টেকনোলজি

 

ডা. ফেরদৌস আরা একজন অল্প বয়সী সফল গাইনি সার্জন। বর্তমানে সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে একটি বেসরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কর্মরত আছেন। সকাল ৮টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত মেডিকেল কলেজ ছাত্রছাত্রীদের ক্লাস, হাসপাতালের রোগী, অপারেশন ও বিকালে প্রাইভেট চেম্বার—সর্বোপরি সংসারের ব্যক্তিগত কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকতে হয়। প্রতিদিন সকালে বাসা থেকে অফিসে যাওয়ার পথে নিজের গাড়িতে বসেই অথবা অবসর সময়ে নিজস্ব ল্যাপটপ ও ইন্টারনেটের মাধ্যমে আধুনিক চিকিত্সা বিজ্ঞান সম্পর্কে প্রয়োজনীয় জ্ঞান অর্জন করে থাকেন। অল্প বয়সী এ সার্জন শহরে বসবাসরত খুব অল্পসংখ্যক রোগীকে চিকিত্সাসেবা প্রদান করতে পারেন। অনেক চিকিত্সক ছুটির দিনে ঢাকার বাইরে গিয়ে চিকিত্সাসেবা প্রদান করলে ডা. হোসনে আরার পক্ষে তা সম্ভবপর হয়ে ওঠে না। কারণ তার সময়ের স্বল্পতা ও শহর থেকে দূরে বলে।
ডা. ফেরদৌস আরার অল্প বয়সে যথেষ্ট খ্যাতি ও অর্থ উপার্জনের সক্ষমতা থাকলেও একটি চাপা কষ্ট তাকে বারবার পীড়া দেয়। কবে আসবে সেদিন, যেদিন আধুনিক ডিজিটাল চিকিত্সা ব্যবস্থার মাধ্যমে গ্রামে ফেলে আসা চাচি, মামী, বোন, মা’দের এবং গ্রামের সেই কৃষক ভাইদের—যাদের মাথার ঘাম পায়ে ফেলা পরিশ্রমের অর্থেই হোসনে আরার মতো হাজারও গাইনি, মেডিসিন, আই, নেফ্রোলজি ও রেডিওলজিসহ বিশেষজ্ঞ ডাক্তার এ দেশে তৈরি হয়েছে।
স্বাস্থ্যখাতে থ্রিজি বা থার্ড জেনারেশন টেকনোলজি চিকিত্সক ফেরদৌস আরার এই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে পারে। তৃতীয় বিশ্বের দারিদ্র্য উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের মতো একটি দেশে সরকারের একার পক্ষে গ্রামে বসবাররত দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মাঝে উন্নত চিকিত্সাব্যবস্থা এই স্বল্পসংখ্যক চিকিত্সকের মাধ্যমে পৌঁছানো সম্ভব নয়। এজন্য সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি হাসপাতালগুলোয়ও ডিজিটাল সিস্টেমের মাধ্যমে এদেশের দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মধ্যে আধুনিক চিকিত্সাসেবা পৌঁছে দেয়া।
গত ১০ বছরে আমাদের এই নদীমাতৃক দেশে রাস্তা-ঘাট, ট্রেন ও প্লেন যোগাযোগ ব্যবস্থা যতটা উন্নত হয়নি, তার চেয়ে বেশি উন্নয়ন হয়েছে টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা। এই টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা কাজে লাগিয়ে ৩-এ টেকনোলজির মাধ্যমে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য ও শিক্ষাখাতকে ডিজিটাল করা যেতে পারে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এমনকি ভারত ও নেপালে থ্রিডি টেকনোলজির মাধ্যমে স্বাস্থ্যখাতকে ডিজিটাল করার পরিকল্পনা চলছে। যেহেতু বর্তমানে বিভিন্ন হাসপাতাল মেশিনারি যেমন এক্স-রে, সিটি স্ক্যান, এমআরআই, আলট্রাসনোগ্রামসহ অনেক ল্যাবরেটরির মেশিন কম্পিউটার দ্বারা পরিচালিত হয় এবং ডাটা সরাসরি সার্ভারে সংরক্ষণ করা যায় সেহেতু বর্তমান সরকারি ও প্রাইভেট হাসপাতালগুলো যদি এখনই আধুনিক ডিজিটাল সিস্টেমের আওতায় না আনা হয় তবে অদূর ভবিষ্যতে বাংলাদেশের স্বাস্থ্যখাত হুমকির সম্মুখীন হবে এবং আধুনিক স্বাস্থ্যব্যবস্থা থেকে পিছিয়ে পড়বে। তাই এখনই স্বাস্থ্যখাতে সঠিক ভবিষ্যত্ পরিকল্পনা করতে হবে।
কী এই থ্রিজি টেকনোলজি
থ্রিজি টেকনোলজি এমন একটি ব্যবস্থা, যার মাধ্যমে ছবি ও কথা একই সঙ্গে মোবাইল যোগাযোগ ব্যবস্থার মাধ্যমে অত্যন্ত অল্প খরচে অন্য জায়গায় পাঠানো সম্ভব। থ্রিজি টেকনোলজি ব্যবহারের জন্য একটি থিজি পড়সঢ়ধঃরনষব গড়নরষব ও Laptop প্রয়োজন হতে পারে। এই টেকনোলজি ব্যবহার করে সিটি স্ক্যান, আইআরআই, আলট্রাসনোগ্রামসহ বিভিন্ন ল্যাবরেটরি টেস্ট রিপোর্ট চিকিত্সকরা সরাসরি কোনো মেশিন থেকে কম্পিউটার সার্ভারের মাধ্যমে নিজস্ব ল্যাপটপে সংরক্ষণের মাধ্যমে দূরের কোনো রোগীকে চিকিত্সা প্রদান করতে পারবেন। এই টেকনোলজি ব্যবহার করে টেলিমেডিসিন ও কম্পিউটারাইজড হাসপাতাল ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমকে আরও গতিশীল করা যেতে পারে, যা ভবিষ্যত্ স্বাস্থ্যখাতকে করতে পারে অধিকতর উন্নত।

ডিজিটাল হেলথ সিস্টেমের অসুবিধাগুলো
বাংলাদেশের ডিজিটাল স্বাস্থ্যব্যবস্থা একটি নতুন ক্ষেত্র। এই ক্ষেত্রে কাজ করতে গেলে নিম্নলিখিত অসুবিধা দেখা যায়—

১. ডিজিটাল স্বাস্থ্য সিস্টেমকে উন্নয়ন, কার্যকর প্রয়োজনীয় কম্পিউটার বিশেষজ্ঞের অভাব। ব্যাংক ও টেলিযোগাযোগ খাতে কম্পিউটার বিশেষজ্ঞদের যথেষ্ট মূল্যায়ন করা হলেও স্বাস্থ্যখাতে কম্পিউটার বিশেষজ্ঞদের তেমন মূল্যায়ন করা হয় না। তাই মেধাবী কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়াররা এই ব্যবস্থায় আসতে চায় না।
২. অধিকাংশ হাসপাতালগুলোয় ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ডাক্তার হওয়ায় হাসপাতাল কম্পিউটারাইজড সিস্টেমের ওপর অভিজ্ঞতা না থাকায় ওই সিস্টেমটি হাসপাতালে কার্যকর করতে চায় না। তবে অনেক তরুণ ডাক্তার স্বাস্থ্যখাতে ডিজিটাল সিস্টেম করা সময়ের দাবি বলে মনে করেন।
৩. সরকারের পাশাপাশি প্রাইভেট হাসপাতালগুলোকে এই সিস্টেম চালু করার জন্য যথেষ্ট আন্তরিক হতে হবে। প্রতিটি সরকারি হাসপাতালে প্রাথমিকভাবে একটি করে কম্পিউটার ইউনিট করা যেতে পারে।
৪. সাধারণত রোগীরা সরাসরি ডাক্তারের কাছ থেকে ব্যবস্থাপত্র গ্রহণে অভ্যস্ত। ডিজিটাল সিস্টেমের মাধ্যমে রোগীদের চিকিত্সা গ্রহণের সচেতনতা বৃদ্ধির ব্যবস্থা করতে হবে।
৫. কম্পিউটারাইজড হাসপাতাল সিস্টেমের ওপর বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি কোর্স চালু করা যেতে পারে।
৬. মেডিকেলে শেষ বর্ষে ইন্টার্নি করার সময় অন্যান্য ট্রেনিংয়ের পাশাপাশি কম্পিউটারের ওপর বিশেষ ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা করা যেতে পারে।
৭. কোনো একটি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল তৈরির আগে এখাতে প্রয়োজনীয় পরিমাণ অর্থবরাদ্দ থাকতে হবে এবং আর্কিটেকচারাল ডিজাইনে কম্পিউটার নেটওয়ার্কের ব্যবস্থা রাখতে হবে।
৮. প্রতিটি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালগুলোয় কম্পিউটারাইজড হাসপাতাল ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম চালু করার পর ওই সিস্টেমগুলোকে একটি কেন্দ্রীয় নেটওয়ার্কের আওতায় আনা যেতে পারে।

নিজের প্রয়োজনে গুগল সার্চ

যে কোনো তথ্য-উপাত্ত বা সাহায্য-সহযোগিতা, সবকিছুতেই গুগল আপনাকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিচ্ছে। এক কথায় যদি কাউকে একটা প্লাটফর্ম ভাবা যায়, তবে এখন পর্যন্ত গুগল সেই ভূমিকায় সর্বসেরা। কী নেই তাদের সেবায়, সর্বশ্রেষ্ঠ সার্চ ইঞ্জিন, সিউকিউরড মেইল সার্ভিস, ইউটিউব ভিডিও, ওয়ার্ল্ডওয়াইড গুগল ম্যাপ, অরকুট, বাজ, ব্লগারসসহ আরও অনেক অনেক উপকারী সেবা।

গুগলকে ব্যবহার করে কীভাবে যেকোন তথ্য বের করে আনা যায়, সেটা গুগলের থেকেই হোক বা অন্য কোনো সাইট থেকেই হোক। আবহাওয়া
গুগলের মাধ্যমে যেকোনো শহরের আবহাওয়া জানতে ‘weather’ লিখে স্পেস দিয়ে শহরের নাম এবং অতঃপর দেশের কোড নেম লিখতে পারেন। যেমন বাংলাদেশের ক্ষেত্রে weatherdhaka,bd লিখে সার্চ দিন। পেয়ে যাবেন আপনার কাঙ্ক্ষিত আবহাওয়ার সংবাদ।

সময়
বিশ্বের বিভিন্ন স্থানের এখন সময় জানতে আপনি দেখতে পারেন গুগলের টাইম সার্চ ফিচারটি। এক্ষেত্রে আপনাকে টাইপ করতে হবে ‘time’ এবং শহরের নাম বা দেশের নাম। যেমন : ime uae লিখে সার্চ দিলে আপনি বাংলাদেশের সময় থেকে ২ ঘণ্টা সময় পেছনে পাবেন এবং সময় অবশ্যই ২৪ ঘণ্টা ফরমেটে পাবেন।

সূর্যোদয় বা সূর্যাস্ত
বিভিন্ন দেশের বা শহরের সূর্যাস্ত বা সূর্যোদয় জানতে টাইপ করুন ‘sunrise’ অথবা ‘sunset’, তারপর শহরের নাম লিখুন। সার্চ দিন আপনার সামনে হাজির হয়ে যাবে সঙ্গে সঙ্গে। এর সঙ্গে আরও জানবেন সেই সময় থেকে আপনার আর কত সময় হাতে আছে।

পরিমাপের পরিবর্তন
আপনি চাইলে গুগলের কনভার্টারকে ব্যবহার করতে পারেন। যেমন ধরুন আপনাকে ইঞ্চি থেকে সেন্টিমিটারে কনভার্ট করতে হলে আপনাকে লিখতে হবে ১ রহপয রহ পস, যেখানে আপনি ১ ইঞ্চিকে সেন্টিতে পরিণত করার জন্য বুঝিয়েছেন। তাহলে গুগলই আপনাকে মুহূর্তের মধ্যে জানিয়ে দেবে যে, ২.৫৪ সেন্টিতে ১ ইঞ্চি। এছাড়াও আপনি যেকোন পরিমাপের কনভার্ট করতে গুগলকে সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারেন।

জনসাধারণের তথ্য
জনসংখ্যা থেকে শুরু করে যেকোন হালনাগাদকৃত তথ্য পেতে গুগল আরও এক ধাপ এগিয়ে। যেমন আপনি এখন বাংলাদেশের সর্বশেষ গণনাকৃত জনসংখ্যা জানতে চাইছেন, শুধু ‘population’ লিখে দেশের নাম বাংলাদেশ লিখুন সার্চ বক্সে এবং এন্টার চাপুন সঙ্গে সঙ্গেই পেয়ে যাবেন প্রায় ১৬ কোটি ২২ লাখ ২০ হাজার ৭৬২ জন, যা ২০০৯ সালে গণনা করা হয়েছিল। এছাড়াও জানতে পারেন বেকার জনসংখ্যা ও তা জানতে পারেন ‘nemployment rate’ তারপর দেশের নাম লিখে।

হারানো মানুষকে খুঁজুন
আপনার ছোট বেলার কোন বন্ধুকে খুঁজে পেলেও পেতে পারেন এই গুগলের মাধ্যমে। যেমন কোনো নাম লিখে সার্চ দিলে একটা লিস্ট আসবে। এভাবে প্রোফাইল ইনফো পেয়েও যেতে পারেন।

একই বিভাগের অন্যান্য সাইট
‘related:’ লিখে আপনি যেই সাইটের মতো আরও সাইট খুঁজছেন, তা লিখে সার্চবক্সে গিয়ে এন্টার দিন। যেমন related:amardeshonline.com লিখে সার্চ দিলে টিটির মতো আরও একই টাইপের সাইটগুলোকে পেয়ে যাবেন।
এছাড়াও যেকোন তথ্য খুঁজে পেতে পারেন আপনার বুদ্ধিমত্তাকে কাজে লাগিয়ে।

পিসি কেনার আগে

অনেকেরই হয়তো এখনও পিসি কেনা হয়নি, কিন্তু ভাবছেন একটি নতুন পিসি

কিনবেন। পিসি কেনা নিয়ে পড়েছেন এক নতুন চিন্তায়। কী ধরনের পিসি কিনবেন,
ব্র্যান্ড না ক্লোন? এ বিষয়ে প্রতিবেদন লিখেছেন—আহসান হাবিব 

বাজেট : সর্বপ্রথম আপনাকে বাজেট নির্ধারণ করতে হবে। প্রত্যেকেরই কমবেশি বাজেট থাকে। সুতরাং আপনিও এর ব্যতিক্রম নন। এমনও হতে পারে আপনার বাজেট ৩০ হাজার টাকা কিন্তু পিসি কেনার সময় দেখা যাচ্ছে আপনাকে আরও অতিরিক্ত ৪/৫ হাজার টাকা যোগ করতে হচ্ছে। ব্র্যান্ড পিসি কিনলে বাজেট অবশ্যই একটু বেশি থাকতে হবে।
পিসির গুরুত্বপূর্ণ ডিভাইসগুলো এবং গাইডলাইন : পিসি ব্র্যান্ড বা ক্লোন, লো-কোয়ালিটি বা হাই-কোয়ালিটি যাই কিনুন না কেন, আপনার পিসির যন্ত্রাংশ/ডিভাইসগুলো সম্পর্কে অভিজ্ঞতা থাকলে খুব উপকারে আসবে।
প্রসেসর : প্রসেসর হচ্ছে কম্পিউটারের ব্রেইন বা মস্তিষ্ক। প্রসেসর কেনার আগে আপনাকে সর্বাধিক সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে, যেন ভবিষ্যতে আপনাকে প্রসেসর পরিবর্তন নিয়ে সমস্যার সম্মুখীন হতে না হয়। কেনার সময় দেখে নিন প্রসেসরটি কোন দেশের তৈরি, কুলিং ফ্যান সুবিধা ইত্যাদি। বাজারে সাধারণত ইন্টেল, এএমডি প্রভৃতি প্রসেসর পাওয়া যায়।
মাদারবোর্ড : মাদারবোর্ড কেনার সময় সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিতে হবে চিপসেট এবং ব্র্যান্ডের ওপর। তাছাড়া বাস স্পিড, র্যাম স্লট, বিভিন্ন পোর্ট যেমন—ইউএসবি, পিএসটু ইত্যাদি। কম্পিউটার বাজারগুলোয় প্রসেসর এবং মাদারবোর্ডের সমন্বিত প্যাকেজ পাওয়া যাচ্ছে।
হার্ডডিস্ক : হার্ডডিস্কে সব ডেটা এবং প্রোগ্রাম সংরক্ষিত থাকে। হার্ডডিস্কের পারফরমেন্স নির্ভর করে এর স্পিডের ওপর। হার্ডডিস্কের স্পিড পরিমাপ করা হয় জচগ (Rotation Per Minute) দ্বারা।
র্যাম : কম্পিউটারের প্রধান মেমোরি ডিভাইস। ডেটা হার্ডডিস্কে স্থায়ীভাবে রাখার আগ পর্যন্ত র্যামেই অবস্থান করে। আপনি যত বড় এবং গুরুত্বপূর্ণ কাজ করবেন আপনাকে তত বেশি র্যাম ব্যবহার করতে হবে। র্যামের অন্যতম প্রধান বিষয় হচ্ছে এর বাস স্পিড, যা মাদারবোর্ডের সঙ্গে মিল রেখে কিনতে হয়।
সিডিরম ড্রাইভ : সফটওয়্যার, গান প্রভৃতি এখন সিডিতে পাওয়া যায়। তাই সিডিরম ড্রাইভ খুব অত্যাবশ্যকীয় একটি ডিভাইস, যা ছাড়া পিসির পূর্ণতা আসবে না।
সিডি রাইটার : আপনি যদি সিডিতে প্রচুর ব্যাকআপ রাখার কথা ভেবে থাকেন তাহলে আপনার উচিত হবে সিডি রাইটার ব্যবহার করা। সিডি রাইটার থাকলে আপনি অনেক সুবিধা ভোগ করতে পারবেন। তবে যাদের একান্তই প্রয়োজন শুধু তারাই এটা ব্যবহার করবেন, অযথা সিডি রাইটার না কেনাই ভালো।
ডিভিডি রম ড্রাইভ : আপনার পিসিতে যদি ডিভিডি দেখতে চান তাহলে ডিভিডি রম ড্রাইভ প্রয়োজন। আজকাল ডিভিডি রমের চাহিদাই বেশি। আবার প্রয়োজন হলে ডিভিডি রাইটারও ব্যবহার করতে পারেন।
মনিটর : মনিটর কম্পিউটারের প্রধান আউটপুট ডিভাইস। আমরা যা কিছু ইনপুট দেই না কেন, তা আমরা মনিটরের মাধ্যমে দেখতে পাই। মনিটর কেনার সময় কালার পারফরমেন্স, ভিউ, ব্রাইটনেস বা রেজ্যুলেশন দেখে নিন। আর অবশ্যই ওয়ারেন্টির বিষয়টি মাথায় রাখবেন।
গ্রাফিক্স কার্ড : গ্রাফিক্স কার্ডের কাজ হলো প্রসেসকৃত সব ডেটার আউটপুট ডিসপ্লেতে পাঠিয়ে দেয়া। আমরা মনিটরে যা কিছু দেখতে পাই তা গ্রাফিক্স বা এজিপি কার্ডের কল্যাণে। গ্রাফিক্স কার্ড বর্তমানে মাদারবোর্ডের সঙ্গে বিল্ট-ইন পাওয়া যায়। তবে যদি আপনি থ্রিডি, হাই-কোয়ালিটি গেমস ও গ্রাফিক্সের কাজ করতে চান তাহলে আপনাকে ভালো মানের ও ভালো চিপসেটের গ্রাফিক্স কার্ড ব্যবহার করতে হবে।
সাউন্ড কার্ড : বর্তমানে মাদারবোর্ডের সঙ্গেই সাউন্ড কার্ড বিল্ট-ইন থাকে। খুব ভালো পারফরমেন্স পেতে হলে আপনাকে সাউন্ড কার্ড কিনতে হবে। সাউন্ড কার্ড কেনার সময় চিপসেটটি ভালো কোম্পানির কিনা দেখে নিন।
স্পিকার : যারা গান পছন্দ করেন, স্পিকার তাদের জন্য বাধ্যতামূলক। স্পিকারের মাধ্যমেই আপনি যে কোনো শব্দ শুনতে পারেন। তবে স্পিকার কেনার আগে একটু ভালোভাবে দেখেশুনে কিনবেন এবং স্পিকার ও সাউন্ড কার্ডের সঙ্গে যেন সামঞ্জস্য থাকে।
প্রিন্টার : প্রিন্টার অন্যতম একটি আউটপুট ডিভাইস। প্রিন্টার খুবই প্রয়োজনীয় একটি যন্ত্রাংশ, যার মাধ্যমে আমরা পিসিতে করা কাজগুলোকে প্রিন্ট দিতে সক্ষম হই। জেট প্রিন্টার দামে একটু সস্তা এবং লেজার প্রিন্টার দাম একটু বেশি হয়ে থাকে। তাছাড়া প্রিন্টার ব্ল্যাক হোয়াইট এবং কালার দু’ধরনেরই সব স্থানে পাওয়া যায়।
সফটওয়্যার : পিসির জন্য আপনাকে সর্বপ্রথম একটি অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহার করতে হবে। উইন্ডোজ বা লিনাক্স যে কোনোটিই আপনি ব্যবহার করতে পারেন। আপনার অতি শখের পিসি, যাতে ভাইরাসের আক্রমণ থেকে বাঁচতে পারে সেজন্য ব্যবহার করতে হবে এন্টি-ভাইরাস সফটওয়্যার। এরপর আপনি যত ইচ্ছা আপনার চাহিদা অনুযায়ী প্রোগ্রাম বা সফটওয়্যার ব্যবহার করতে পারেন।
অন্যান্য : কিবোর্ড, মাউস ছাড়াও পিসিতে ব্যবহারযোগ্য আরও বহুবিধ ডিভাইস ও আইটি পণ্য রয়েছে, যা আপনি ইচ্ছা করলেই ব্যবহার করতে পারেন। যেমন—পেনড্রাইভ, ওয়েবক্যাম, ইউপিএস, স্ক্যানার, স্ট্যাবিলাইজার, ফ্যাক্স মডেম, টিভি কার্ড প্রভৃতি।

%d bloggers like this: