মানব হূদয়ে মৃত্যু চিন্তা

মানব হূদয়ে মৃত্যু চিন্তা

এ বিশ্বে মানুষের জীবন অত্যন্ত সংক্ষিপ্ত। এ নশ্বর দুনিয়ায় তার দিনগুলো সীমাবদ্ধ। বেঁচে থাকার আগ্রহ মানুষের এক স্বভাবজাত প্রবৃত্তি, দুনিয়ায় তার প্রয়োজন অফুরন্ত। অসীম তার আশা-আকাঙ্খা, কিন্তু এরপরও তাকে মৃত্যুবরণ করতে হয়। প্রতিটি প্রাণী বা প্রাণশীল সৃষ্টিকেই মৃত্যুর মুখোমুখি হতে হবে। আমাদের প্রত্যেকেরই মৃত্যু আসবে। আমাদের সবাইকে মৃত্যুবরণ করতে হবে। মৃত্যু চিরন্তন সত্য। এ সম্বন্ধে কুরআন মজিদে এরশাদ হয়েছে ‘প্রতিটি নাফ্স (প্রাণসত্তা)-ই মৃত্যুবরণ করবে’ পৃথিবীর বুকে আমাদের এ জীবন নিতান্তই সাময়িক। মৃত্যু আমাদের এ জীবনের সমাপ্তি ঘটিয়ে দেয়। ইসলাম আমাদের এ কথাটি মনে রাখতে বলে যে, মৃত্যু যেকোনো সময় এসে হাজির হতে পারে। কেবল আল্লাহতায়ালাই জানেন কখন তার কোনো বান্দা মৃত্যুবরণ করবে। কোনো মানুষই এ সুন্দর মনোরম পৃথিবীতে চিরস্থায়ী হয়ে আসেনি। এক এক করে প্রত্যেক মানুষকে এই সুন্দর মনোরম পৃথিবী থেকে চলে যেতে হবে। একদিন তাকে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়তে হবে। বিংশ শতাব্দীর মানুষ অনেক আশ্চর্যজনক বস্তু আবিষ্কার করেছে। এই বিশ্বের মানুষকে বিজ্ঞান অনেক কিছু দিতে সক্ষম হয়েছে। কিন্তু মৃত্যুর কোল থেকে বেঁচে থাকার কোনো বস্তু আবিষ্কার করতে সক্ষম হয়নি মানুষ। এই মৃত্যু প্রত্যেক মানুষের জীবনের পরিসমাপ্তি টেনে দেয়, মানুষের স্বপ্নসাধ খান খান করে দেয়। মৃত্যুর সামনে সকলেই অসহায়। মৃত্যুর আনাগোনা শুধু দারিদ্র্যের পর্ণকুটিরে নয়, রাজার রাজপ্রাসাদে, সেনাপতির সুরক্ষিত দুর্গ, বিজ্ঞানীর গবেষণাগারে সর্বত্র। সব প্রাণীরই মৃত্যু অনিবার্য।

ধনী-দরিদ্র, বালক-বৃদ্ধ, সবল-দুর্বল, পাপী-পুণ্যবান নির্বিশেষে সব মানুষেরই মৃত্যুবরণ করতে হবে। কেউই মৃত্যুর কঠিন গ্রাস হতে রক্ষা পাবে না। ইসলাম মৃত্যুকে মানব জীবনের অবসান বলে স্বীকার করে না বরং একে চিরস্থায়ী পারত্রিক জীবনের একটি প্রবেশপথ বলে মনে করে। ইসলামের দৃষ্টিভঙ্গি অনুযায়ী মৃত্যুই পারলৌকিক স্থায়ী জীবনের প্রারম্ভ। ইহজগতে মানুষের স্থিতিকাল নিতান্তই অল্প, ৬০, ৭০ কিংবা ১০০ বছর মানুষ এই সামান্য সময়ের জন্য পৃথিবীতে বাস করতে যেয়ে তার বহুমুখী জ্ঞান-পিপাসা মিটাবার জন্য আকাশ, পাতাল, সাগর, পাহাড় সর্বত্রই বিচরণ ও পর্যবেক্ষণ করছে। এমনকি পদার্থের অণুকে দেখে এখন পরমাণুকে ভেঙ্গে তার শক্তি পরীক্ষা ও ব্যবহার করছে। আর তার অনন্তকাল বাসের আবাস যে পরজগতে তা সম্বন্ধে মানুষের ধারণা যা আছে তা একান্তই ভাসা ভাসা। মহত্ লোকের জন্য মৃত্যু পরম আকাঙ্ক্ষিত বস্তু, কারণ মৃত্যুর মাধ্যমে তাদের জাগতিক সব দুঃখ যাতনার অবসান হয়, সব ব্যথা বেদনার ইতি হয়। মৃত্যুকে আমরা বুঝতে পারি না যদিও আমরা তা নিত্য দেখছি। যখন অতিপরিচিত বা অতি আপন কেউ মারা যায় তখনই হয়তো কিছুটা সচেতন হই। এ জীবনের অবসান যে ঘটবে জীবনে এর চেয়ে বড় সত্য আর কিছু নেই। মৃত্যু সবার জন্য অবধারিত। কিন্তু খুব কম সংখ্যক লোকই মৃত্যুর কথা স্মরণ করে এবং মৃত্যুর পরবর্তী সময়ের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করে। কোনো কোনো লোক গুণাহ করেও মৃত্যুর কথা স্মরণ করে না, অথচ যারা সত্যিকারের মুমিন তারা সর্বদা মৃত্যুকে স্মরণ করে থাকেন।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: