আজান আল্লাহর মহানিয়ামত

আজান আল্লাহর মহানিয়ামত

 

মুসলমানদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত হলো নামাজ। আর নামাজের জন্য আজান দেয়া আবশ্যক। রাসূল সাঃ-এর জামানা থেকে আজান দেয়ার রীতি চলে আসছে এবং আজানের শব্দ কিভাবে মসজিদ থেকে দূরে অবস্থানরত মানুষের কাছে পৌঁছানো যায় তার জন্য রীতিমতো গবেষণা করা হয়েছে।

সেই সাথে আজানের শব্দ কী হবে তা নিয়েও রাসূল সাঃ ও সাহাবায়ে কেরাম রাঃ ভীষণ চিন্তা-ফিকির করছেন। কেউ বলেছেন ঘণ্টা বাজানো হোক, কেউ বা বলেছেন আগুন জ্বালানো হোক, কেউ বা বলেছেন শিঙ্গায় ফুঁক দেয়া হোক ইত্যাদি। কিন্তু তার কোনোটিই রাখা হয়নি। আল্লাহ রাব্বুল আলামিন হজরত উমর রাঃ-কে স্বপ্নে শেখালেন মধুর কিছু শব্দ যা আজান হিসেবে পৃথিবীর লাখো কোটি মসজিদের মিনারে মিনারে ধ্বনিত-প্রতিধ্বনিত হয়।

আজান আল্লাহর এক মহা নিয়ামত, মধুর বাণী, যা শুনলে মুমিনের ঘুম ভেঙে যায়, জুড়িয়ে যায় হৃদয়, প্রফুল্ল ছড়িয়ে পড়ে মুমিনের প্রাণে, মুহূর্তেই সব মোহ ভেঙে প্রেমে পড়ে যায় মহান প্রভুর, যিনি আমাকে-তোমাকে সৃষ্টি করেছেন। ব্যাকুল হয়ে পড়ে তার সাক্ষাতের জন্য। নামাজ হলো প্রভুর সাথে মুমিনের সাক্ষাৎস্থল। আশেক-মাশুকের প্রেমের প্রেমময় প্রাঙ্গণ।

কিন্তু দুঃখজনক হলেও বাস্তবতা হলো, আজ দেশে দেশে বিধর্মী ও নাস্তিকেরা আজানকে বন্ধ করে দিতে চায়। আজানের মতো মধুর বাণী তাদের কাছে খাট্টার মতো লাগে।

কেননা তারা শয়তানের সহচর। রাসূল সাঃ বলেছেন, অভিশপ্ত শয়তান আজানের বাণী শুনলে বায়ু নিষ্কাশন করতে করতে পলায়ন করে, এ হাদিসের পর আর নতুন করে বলার প্রয়োজন পড়ে না যে শয়তান ও তার অনুসারীরা আজানকে কতটা ভয় পায়। গত ২০ মে দৈনিক নয়া দিগন্তে একটি সংবাদ ইসরাইলে আজানে মাইক ব্যবহার নিষিদ্ধ করার একটি বিল নেসেটে (দেশটির পার্লামেন্ট) পেশ করেছে ডানপন্থী ইসরাইল বেতান দলের সদস্য অ্যানাস্তাসিয়া মিখায়েলি। প্রস্তাবিত বিল অনুযায়ী আজানে মাইক ব্যবহার নিষিদ্ধ হবে এবং নতুন এ আইন লঙ্ঘনকারীকে জরিমানা বা কারাদণ্ড দেয়া হবে। মিখায়েলি বলেন, মুসলমানদের আজানের কারণে তিনি কিছুতেই হাজার হাজার ইহুদির জীবনযাত্রার মান ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারেন না। তিনি বলেন, আজানের কারণে প্রতি দিন লাখ লাখ ইহুদি চরম দুর্ভোগ পোহায়; যা কোনোভাবেই মেনে নেয়া যায় না। মিসরের প্রখ্যাত লেখক জাইয়েদ শামস তার একটি নিবন্ধে লিখেছেন, ইসরাইলে মুসলমানদের প্রকাশ্যে মসজিদে যাওয়াও নিষিদ্ধ হতে পারে এবং মহা ধুমধামে ধর্মীয় রীতিনীতি পালন করা যাবে না এমন আইনও আসছে। ইসরাইলিরা দাবি করে, তারা একটি নিরঙ্কুশ ইহুদি রাষ্ট্র। যেখানে একমাত্র ইহুদিরাই আধিপত্য বিস্তার করবে। আমাদের আশ্চর্য হতে হয়, ইসরাইলের মতো একটি অবৈধ রাষ্ট্র যারা কিনা মুসলমানদের পবিত্র ভূমিতে আশ্রিত ছিল মাত্র। আজ তারা আরব ভূমিতে দাঁড়িয়ে মুসলমানদের ইতিহাস ঐতিহ্য, চেতনা-বিশ্বাসে আঘাত করার মতো দুঃসাহস দেখায়, আর মুসলিম আরব রাষ্ট্রপ্রধানেরা তখনো আরাম-আয়েশে মহাব্যস্ত। মূলত আরব রাষ্ট্রগুলোর ব্যর্থতার কারণেই তারা কায়েম করতে পেরেছে একটি অবৈধ রাষ্ট্র। তাদের সহায়তাই ওরা নির্মম নির্যাতন চালায় ফিলিস্তিনি নিরীহ নিরস্ত্র মানুষের ওপর। কিন্তু আমরা কোথায় বসবাস করি? আমাদের আকিদা-বিশ্বাস আজ কোন স্তরে? সেই ঈমানি শক্তি আজ কাদের কাছে বারবার মাথানত করে? কোথায় হারিয়েছি আমাদের গৌরবগাথা ইতিহাস-ঐতিহ্যকে? খুঁজে বের করতে হবে কেন আজ আমাদের এই নিুপতন। ইতঃপূর্বে ইউরোপের কিছু মসজিদে মাইকে আজান নিষিদ্ধ হয়েছে আমরা প্রতিবাদ করিনি। ইসরাইলেও নিষিদ্ধ হচ্ছে। আমরা কি একবারো চিন্তা করছি ওরা যে আস্তে আস্তে ইসলামের মূল শিকড়ে আঘাত হানছে। দেশে দেশে নিষিদ্ধ হচ্ছে মুসলিম মেয়েদের শালীনতার প্রতীক বোরকা। আঘাত হানছে শিক্ষা-দীক্ষাসহ সব মৌল বিশ্বাসের ওপর। কিন্তু আজো আমরা ঘুমে বিভোর। কেউ বা ঘুমে অচেতন। আর কারো চোখের সামনেই চুরি হচ্ছে আমাদের সব কিছু। আমরা চেয়ে চেয়ে দেখছি। আর মনে মনে ভাবছি যাক এই বুঝি শেষ। যে সত্যকে প্রতিষ্ঠার জন্য রাসূল সাঃসহ সাহাবায়ে কেরামকে রক্ত দিতে হয়েছে, যাদের পবিত্র রক্তের ওপর প্রতিষ্ঠিত বিশ্ব শান্তির ধর্ম ইসলাম, তা হিফাজত করার দায়িত্ব আজ আমাদের। মুখ বুজে থাকলে ওরা আরো সাহসী হবে। আর যা-ই হোক গণতন্ত্রের লেবাসধারী এসব মানুষরূপী ঘাতককে আর সুযোগ দেয়া যায় না। এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। প্রয়োজনে দিতে হবে কঠিন জবাব। তবে অন্তত এখন প্রতিবাদ করা সব মুসলমানের ঈমানি দায়িত্ব।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: