গরমে সর্দি ও গলাব্যথা

গরমে সর্দি ও গলাব্যথা

তপ্ত রোদ থেকে এসে ঠাণ্ডা পানি খাওয়ার ফলে বা রাতে দীর্ঘক্ষণ ফ্যান বা এসি চালানো থেকে বয়স্কদের গলাব্যথার সমস্যা হচ্ছে। এ থেকে পরিত্রাণের জন্য যা প্রয়োজন­

বড়দের গলাব্যথাঃ গলাব্যথার সাথে জ্বর ও ঢোক গিলতে সমস্যা হলে ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ হয়েছে ধরা যায়। এ জন্য অ্যামেক্সিসিলিন, অ্যামেক্সিসিলিন ও ক্ল্যাভিলুনিক অ্যাসিডের মিশ্রণ জাতীয় ট্যাবলেট কিংবা সেফ্রাডিন জাতীয় ক্যাপসুল সাত দিন ব্যবহার করতে হবে। ব্যথার জন্য প্যারাসিটামল ট্যাবলেট ভালো। নাক বন্ধ থেকে গলাব্যথা হলে অক্সিমেটাজোলিন, জাইলোমেটাজোলিন জাতীয় নাকের ড্রপস যা অ্যান্টাজল বা রাইনোজল নামে পাওয়া যায়, তা নাকের প্রতিটি ছিদ্রে তিন-চার ফোঁটা করে দিনে দুই-তিনবার ব্যবহার করা হয়। তবে এ ড্রপ সাত দিনের বেশি ব্যবহার করলে নাকের মিউকাস ঝিল্লি আবার ফুলে গিয়ে স্থায়ীভাবে নাক বন্ধ করে দেয়। এর সাথে আদা-চা, লেবু-চা খাওয়া যেতে পারে। যেহেতু বেশি ঠাণ্ডা পানি বা গরম থেকে এসে ঠাণ্ডা পানি খাওয়ার জন্য এ জাতীয় সমস্যা হয় তাই ঠাণ্ডা পানি খাওয়ার ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে। কারণ ঠাণ্ডা পানি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমিয়ে দিয়ে ইনফেকশন সৃষ্টিতে সাহায্য করে। এর চিকিৎসা না করালে টনসিলের চার পাশে ফোড়া বা পুঁজ জমতে পারে। ধুলো-ধোঁয়া, বেশি গরম বা বেশি ঠাণ্ডা এবং ঘরে কার্পেট, তোষক, পর্দা ইত্যাদিতে জমে থাকা ধুলো থেকে সাবধান থাকতে হবে। হালকা গরম পানিতে এন্টিসেপটিক মাউথ ওয়াশ সাথে এক চিমটি লবণ দিয়ে দিনে দুই-তিনবার ব্যথা না কমা পর্যন্ত গরগরা করা যেতে পারে। খাওয়া-দাওয়া স্বাভাবিক চলবে।

ছোটদের সর্দিঃ এটি প্রাথমিকভাবে ভাইরাসজনিত এবং পরে ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণে পাকা সর্দিতে পরিণত হয়। হঠাৎ গরম পড়া থেকেই এমনটি হয়ে থাকে। এ ক্ষেত্রে এন্টিহিস্টামিন সিরাপ যেমন­ সেট্রিজিন ১৪ দিন ব্যবহার করা যায়। বাজারে এ ওষুধ অ্যালাট্রল পিরিটন নামে পাওয়া যায়। হালকা গরম পানিতে মিশিয়ে মধু খাওয়া যায় এবং সে সাথে চিকেন সুøপ খেলে ভালো। ভিটামিন সি সমৃদ্ধ ফল যেমন­ লেবু, কমলা, আমলকি,আমড়া, কামরাঙা প্রভৃতি এ সমস্যা প্রতিরোধে সাহায্য করে। স্বাভাবিক সব খাবারই খাওয়ানো যাবে। তবে যে খাবারে শিশুদের অ্যালার্জি আছে তা বাদ দেয়া উচিত। ঘাম যেন শরীরে না শুকায় সেদিকে বিশেষ নজর দিতে হবে। নাক বন্ধ থাকলে নরসল ড্রপ প্রয়োজন অনুযায়ী ব্যবহার করা যায়। সর্দি পাকলে এন্টিবায়োটিকের প্রয়োজন হয়। চিকিৎসা না করালে সাইনোসাইটিস ও কানে স্থায়ী ব্যথা হতে পারে।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: