সহজ সরল জীবনযাপন

মহান আল্লাহ মানবজাতিকে সৃষ্টি করে পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন। শুধু তিনি মানবজাতিকে সৃষ্টি করে পৃথিবীতে পাঠিয়েই শেষ করেননি। মানবজাতি এই পৃথিবীতে কিভাবে চলবে তার জন্য তিনি দুই ধরনের পন্থা বাৎলে দিয়েছেন। এক. তিনি বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন জাতির কাছে তাঁর বিশেষ দূত পাঠিয়েছেন। এই বিশেষ দূতকে রাসূল বলা হয়। এই রাসূলদের মাধ্যমে তিনি বিভিন্ন আদেশ-নির্দেশ দিয়েছেন। দ্বিতীয়ত, আসমানি কিতাব। মানুষ তাঁর আদিষ্ট পথে পরিচালিত হওয়ার জন্য মহান আল্লাহ পাক আসমানি কিতাব নাজিল করেছেন। এই আসমানি কিতাবই হচ্ছে মানুষের জন্য একমাত্র নির্দেশিকা বা গাইডলাইন। আসমানি কিতাব নাজিলের উদ্দেশ্য হচ্ছে­ এটাকে যথার্থভাবে অনুসরণ ও অনুকরণ করেই পৃথিবীর বুকে মানবজাতি সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে জীবন যাপন করবে।

আল্লাহ তায়ালার প্রিয় বান্দা মানুষ জাতি সহজ ও সরলভাবে জীবন যাপন করবে­ এটাই তাঁর কাম্য। পবিত্র কুরআনুল কারিমে সর্বপ্রথম সূরা ফাতিহায় আল্লাহ তায়ালা সমগ্র বিশ্বের মানুষকে সহজ-সরল জীবনযাপনের এ শিক্ষাই প্রদান করেছেন। সূরা ফাতিহার পঞ্চম আয়াতে মহান আল্লাহ তায়ালার কাছে আমাদের এভাবেই দোয়া করতে আদেশ দেয়া হয়েছে। অর্থাৎ বলা হয়েছে­ ‘আমাদেরকে সরল পথ দেখাও’। আমরা যেন সদা সুন্দর, সাবলীল, মনোরম ও মুগ্ধকর জীবন পরিচালনা করতে পারি। আল্লাহ নির্দেশিত জীবন যাপন করতে পারলে ইহকালে যেমন সুখ-শান্তি, তেমনিভাবে পরকালে মুক্তি নিহিত আছে। আমাদের সব নবীই সহজ-সরল জীবন যাপন করে গেছেন। নবীজী সাঃ সারা বিশ্বের নেতা। গোটা মুসলিম উম্মাহর ধারক হয়েও অত্যন্ত সহজ-সরলভাবে জীবন যাপন করেছেন। একজন মুসলমান উপার্জন করবে হালালভাবে। তার উপার্জনে থাকবে আয়ের বৈধতা। অনুরূপভাবে বৈধ উপায়ে উপার্জিত অর্থ সঠিকভাবে ব্যয় করতে হবে। ব্যয় করতে যেমন কৃপণ হওয়া যাবে না, তেমনি অর্থ অপচয়ও করা যাবে না। এই দুইয়ের মধ্যবর্তী হয়ে মধ্যপন্থা অবলম্বন করতে হবে। ইসলাম মধ্যপন্থাকেই অনুমোদন বা স্বীকৃতি দেয়। মহান আল্লাহ পাক কুরআনুল কারিমে বলেছেন, ‘তারা যখন ব্যয় করে তখন অযথা ব্যয় করে না, কৃপণতাও করে না এবং তাদের পন্থা হয় এতদুভয়ের মধ্যবর্তী।’

সহজ-সরল ও সঠিক পথে চললে, অনুসরণ করলে এবং এভাবে নিজেকে পরিচালনা করলে মানুষ তার সৃষ্টিকর্তার প্রতি বিনয়ী হয়ে ওঠে। বিনয়ী হওয়া মানুষের একটি বিশেষ গুণ। মহান আল্লাহ পাক বলেন, ‘তোমরা বিনয়ের সাথে ও গোপনে তোমাদের প্রতিপালককে ডাকো। তিনি সীমা অতিক্রমকারীদের ভালোবাসেন না।’ সূরা আল আরাফঃ আয়াত ৫৫। তিনি আরো বলেন, ‘তোমরা বিশ্বাসীদের প্রতি বিনয়ী হও। সূরা হিজরঃ ৮৮। ইসলাম ধর্মের অগ্রদূত আমাদের প্রিয় নবীজী সাঃ অত্যন্ত সহজ-সরল, সাদাসিধাভাবে জীবন যাপন করেছেন। তিনি মেষ ও ছাগল চরিয়েছেন। নিজের কাজ নিজে করেছেন। কাউকে কোনো কাজ করতে দেখলে নিজে কাজ করে তাকে সাহায্য করেছেন। তিনি মুজাহিদ সাহাবিদের সাথে একই স্থানে অবস্থান করে অত্যন্ত সহজভাবে দিন যাপন করে যুদ্ধ পরিচালনা করেছেন। এক যুদ্ধে নবীজী সাঃ খেজুরপাতা ঘেরা একটি স্থানে অত্যন্ত সাদাসিধাভাবে অবস্থান করে যুদ্ধ পরিচালনা করেছিলেন। অন্য দিকে মুজাহিদ-সাহাবিরা শত্রুর দুর্গ ঘেরাও করে শত্রুদের অবরোধ করে রেখেছে। এক ইহুদি মেষপালক যিনি মাঠে ইহুদিদের মেষ চড়াতেন তিনিও মুজাহিদ-সাহাবিদের ঘেরাওয়ের মধ্যে পড়ে গেলেন। মেষ চড়ানোর জন্য মাঠে যাওয়ার নিমিত্তে মুজাহিদ-সাহাবিদের কাছে অনুমতি চাইলে তাকে অনুমতি দেয়া হলো। মুসলিম সেনাপতি দেখতে কী রকম তার মাঝে এক ধরনের কৌতূহল জাগ্রত হলো। নবীজী সাঃ-এর সান্নিধ্যের জন্য সাহাবিদের কাছে অনুমতি চাইল। সাহাবিরা হাতের ইশারা দিয়ে নবীজী সাঃ-এর অবস্থান দেখিয়ে দিলেন। নবীজী সাঃ-এর সাথে সাক্ষাৎ করা যাবে কি না জানতে চাইলে সাহাবিরা জানালেন, আমাদের নবীজী সাঃ-এর সাথে যে-কেউ ইচ্ছা করলেই দেখা করতে পারেন। ওই মেষচালক ইহুদি খেজুরপাতায় ঘেরাওয়ের ভেতর প্রবেশ করে দেখলেন, মদিনার শাসনকর্তা, সমগ্র মুসলিম উম্মাহর নেতা, মহান আল্লাহ তায়ালার প্রিয় বন্ধু ও দোজাহানের বাদশাহ অত্যন্ত সহজ-সরল ও সাদাসিধাভাবে বসে আছেন। এভাবে বসে আছেন দেখে ইহুদি মেষচালক অত্যন্ত আশ্চর্যান্বিত হয়ে গেলেন। এই মহামানব অতি সহজ-সরলভাবে খেজুরপাতা ঘেরা কমান্ড পোস্টে বসে আছেন দেখে তিনি বিস্মিত ও অভিভূত হয়ে গেলেন। অতঃপর তিনি প্রিয় নবীজী সাঃ-এর সন্নিকটে গিয়ে ইসলাম গ্রহণ করলেন। এই হচ্ছে আমাদের প্রিয় নবীজী সাঃ-এর সহজ-সরল জীবনের এক সুমহান আদর্শ। তিনি তাঁর সহজ-সরল ও সাধারণ জীবনধারার মাধ্যমে সমগ্র বিশ্বের মানবজাতির কাছে এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হয়ে রয়েছেন।

একবার এক সাহাবি হজরত আয়েশা রাঃ-কে নবীজী সাঃ-এর জীবনচরিত্র সম্পর্কে জানতে চাইলে হজরত আয়েশা রাঃ উত্তর দিলেন, পবিত্র আল কুরআন যেমন, নবীজী সাঃ-এর জীবন ঠিক তেমন। অর্থাৎ নবীজী সাঃ হয়েছেন পবিত্র আল কুরআনুল কারিমের প্রতিচ্ছবি।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: